আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ওবায়দুলসিইসির পদত্যাগ দাবি ‘মামা বাড়ির আবদার’

0 ১০

খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফলাফল বিএনপির প্রত্যাখ্যান বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সবাই বলছে একটি ভালো নির্বাচন হয়েছে। দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। শুধু একটি দল বিরোধিতা করছে। সেই দলটি বিএনপি। এই দলের নামই হচ্ছে মানি না, মানব না।’

ভোটের পর দিন বুধবার (১৬ মে) বিকালে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

আগের দিন আলোচিত এই নির্বাচনে বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জুকে প্রায় ৬৮ হাজার ভোটে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের তালুকদার আবদুল খালেক।

বিএনপির পক্ষ থেকে এই নির্বাচনকে ভোট ডাকাতি ও নজিরবিহীন কারচুপি আখ্যা দিয়ে ভোটের ফলাফলকে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগও দাবি করা হয়েছে।

ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘সিইসির পদত্যাগ ‘মামার বাড়ির আবদার’ ছাড়া আর কিছুই নয়।’

কাদের তার সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন, ‘আওয়ামী লীগ যে উন্নয়ন করছে তাতে তাদের ভোট বেড়েছে। আর বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতিতে তাদের ভোট কমেছে।’

আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘খুলনার জনগণের রায়কে যারা প্রত্যাখ্যান করেছে, আগামী জাতীয় নির্বাচনে জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘তারা তো অনেক ভোট পেয়েছে। ফ্রি আর ফেয়ার ইলেকশন না হলে তারা কি এতো ভোট পেতো? কেউই কেসিসি নির্বাচন নিয়ে সমালোচনা করেনি। এতো ভোট পেয়েও তারা ফলাফল মানছে না। ক্লিন ইমেজের কারণে আমাদের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে।’

এখন বিএনপি তার স্বভাব অনুযায়ী বিভিন্ন মিথ্যাচার করছে। বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। ভীতি সৃষ্টির চেষ্টা করছে। দলটির নেতারা বুঝতে পারেনি জনগণ তাদের সাপোর্ট করবে না। দলটি জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। জিতলে আছি, হারলে নাই- এ ধরনের মানসিকতা থেকে বিএনপিকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

কাদের বলেন, ‘বিএনপি তার আমলে নির্বাচনকে প্রহসনে রূপান্তরিত করেছিল। সে সময় জনগণের ভোটাধিকার ছিল একেবারেই সীমিত। এটা কেউই ভুলে যায়নি।’

তিনি বলেন, ‘কেসিসি নির্বাচন অত্যন্ত উৎসবমুখর পরিবেশে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে। এর জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। বিজয়ী মেয়র তালুকদার আবদুল খালেকসহ বিজয়ী সকলকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।’

খালেদা জিয়ার জামিন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আইন তো মানতে হবে তাদের (বিএনপি)। আইনগত প্রক্রিয়া শেষ হবার আগে বেগম জিয়াকে কিভাবে ছাড়বে আদালত। কারণ তার বিরুদ্ধে তো অন্য মামলাও চালু থাকতে পারে। সেগুলোতেও তো জামিন নিতে হবে। এটা দলটির নেতারাও বলেছেন।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, ডা. দিপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হোসেন চৌধুরী, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ।

মন্তব্য
Loading...